মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
রাষ্ট্রের পুনর্গঠন : তাত্ত্বিক আলোচনা বনাম বাস্তবতা সৈয়দ শামছুল হুদা ১৮ ভোট কেন্দ্রে কচুয়ার ২ ইউনিয়নের উপ-নির্বাচন কাল উত্তাল পাকিস্তান, ‘ইমরান খানের পদত্যাগ চাই’ প্রেমিকাকে ধর্ষণ করে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলো ছাত্রলীগ নেতা মাওলানা সিরাজীর স্মরণে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্য শাখার ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত তাইওয়ানে হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন ইসরায়েলে অবতরণ করলো আমিরাতের প্রথম ফ্লাইট সিলেটে রায়হান হত্যাকান্ডে প্রধান অভিযুক্ত আকবরকে ধরিয়ে দিলে ১০লক্ষ টাকা পুরস্কার ঘোষণা মেয়র আতিকের পরিবারের ২০ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হাতিরঝিলের সেই অজ্ঞাত লাশের রহস্য উদঘাটন হলো যেভাবে

বৈঠকে ভারতকে পাত্তাই দিলো না চীন;সীমান্তের দিকে পাঠিয়েছে শত শত অস্ত্রসজ্জিত গাড়ি

লাদাখে গালওয়ান উপত্যকায় চীনের সেনাদের সঙ্গে দেশটির সেনা সদস্যদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর থেকে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ ছড়িয়ে পড়ে। দুইপক্ষই সেখানে অনড় অবস্থান নেয়।

এছাড়া লাদাখে দুই দেশই সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করতে শুরু করে। তবে উত্তেজনা কমানোর লক্ষ্যে পশ্চিম লাদাখের গালোয়ান উপত্যাকায় সেনা কর্মকর্তা পর্যায়ে চীন-ভারত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবারের এ বৈঠকে চীন সীমান্ত থেকে সেনাসদস্য প্রত্যাহার না করতে অনড় থাকায় কোনো রকম সমাধান হয়নি। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, সোমবার রাতে যেখানে দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে সেই স্থানেই বৈঠকে বসেছেন চীন-ভারতের সামরিক কর্মকর্তারা।

ওই সংঘর্ষে এক কর্নেলসহ ভারতীয় ২৩ সেনা নিহত হয়েছেন। সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, এই মুহূর্তে ওই এলাকা থেকে সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে কোনো স্বাক্ষর করেনি চীন।

এদিকে, ২০ জন ভারতীয় সেনার মৃত্যুর ৪০ ঘণ্টা পর মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেছেন, ‘ভারত শান্তি চায়।’ কিন্তু লাদাখ সীমান্তে এবার শত শত সামরিক গাড়ি মোতায়েন করেছে চীন।

সীমান্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আগেই গোলাবারুদ ও সেনাবোঝাই এসব গাড়ি লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল সীমানার কাছে গালওয়ান নদী উপত্যকায় আনা হয়। স্যাটেলাইট চিত্রে সশস্ত্র সামরিক গাড়ি মোতায়েনের এসব দৃশ্য উঠে এসেছে।

সোমবার (১৫ জুন) রাতে এ গালওয়ান ভেলিতেই দু’পক্ষের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ভারতের ২৩ জওয়ান নিহত হন। ভারতীয় সেনাবাহিনীর মতে, চীনা সেনাবাহিনীরও অন্তত ৪৫ জন নিহত হন।

চীন দাবি করেছে, ভারতীয় সেনারা প্রথমে এলএসি সীমানা লঙ্ঘন করেছিল। কিন্তু ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সংঘর্ষ নিয়ে মিথ্যা বলছে বেইজিং।

প্রমাণ হিসেবে স্যাটেলাইটের ইমেজকে উপস্থাপন করছেন তারা। সংঘর্ষের আগে ও পরে পুরো উপত্যকার সব ছবিই প্লানেট ল্যাবের স্যাটেলাইট ইমেজে ধরা পড়েছে।

মঙ্গলবার সংঘর্ষস্থলের স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ করা হয়। ধারণ করা ওই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ভারতের গালওয়ান নদী উপত্যকা বরাবর সারি সারি মোতায়েন করা চীনা সেনাবাহিনীর (পিএলএ) বেশ কয়েকটি সামরিক ট্রাক।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সংঘর্ষের আগে অন্তত ২শ সশস্ত্র গাড়ি মোতায়েন করা হয়। এছাড়া বেশ কয়েকটি সেনা তাঁবুও টানানো হয়। সংঘর্ষের পরও উপত্যকা থেকে এগুলো সরানো হয়নি।

এই পোষ্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Design & developed by Masum Billah