মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন

বাবরী মসজিদের পরিবর্তে রাম মন্দির; শুভ হবে না এর পরিণতি-বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিস

নিজস্ব ডেস্ক;
ভারতের কট্টরপন্থি হিন্দুত্ববাদী মোদী সরকার পেশী শক্তির জোড়ে একের পর এক দেশ ও মুসলিম বিরোধী কাজ করেই যাচ্ছে। যেন তারা মুসলিম নিধনের মিশনে নেমেছে। অথচ ভারতের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাথে মিশে আছে মুসলমানদের রক্ত-ঘাম। ভারতের স্বাধীনতার পিছনে রয়েছে তাদের অবদান। আজ তারা আপন ঘরে পর, স্বদেশে পরাধীন। ঠুনকো অজুহাতে বাঁধিয়ে দেয়া হচ্ছে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা।খর্ব করা হচ্ছে মুসলিম শক্তি।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯২ সালে শহীদ করা হয় ভারতের উত্তরপ্রদেশের ফয়জাবাদ জেলার অযোদ্যার ঐতিহাসিক “বাবরী মসজিদ”। উগ্রপন্থী হিন্দরা হিংসার বশবর্তী হয়ে “রামের জন্মস্থান”এর সুর তুলে শহীদ করে দেয় মোগল সম্রাট বাদশাহ জহির উদ্দীন বাবরের নামে নির্মিত এই মসজিদটি। ফলে মুসলমানদের হৃদয়ে শুরু হয় রক্তক্ষরণ। চলতে থাকে জমি নিয়ে মামলা। একদিকে মুসলিম সম্প্রদায়, অপর দিকে হিন্দু সম্প্রদায়।

সর্বশেষ গত নভেম্বরে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সঠিক তথ্যের বিপরীতে গিয়ে স্বজনপ্রীতি করে হিন্দুদের পক্ষে রায় দেয়। রাম মন্দির নির্মাণের প্রত্যাদেশ জারি করে।
সুপ্রিম কোর্টের এই রায় সাম্প্রদায়িকতাকে উস্কে দিচ্ছে। সুতরাং তা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।
মোদি সরকার পেশী শক্তির জোড়ে এই রায় জারি করিয়ে নিলেও তার মাশুল দিতে হবে।

আজ ০৫/০৮/২০২০ বুধবার ঐতিহাসিক বাবরী মসজিদের জায়গায় রাম মন্দিরের ভিত্তি স্থাপনের কথা রয়েছে।
আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।
মোদি সরকারকে এর জন্য চরম মূল্য দিতে হবে।
বাবরী মসজিদের পক্ষে আমরা আইনি লড়াই সহ সবধরনের লড়াই করে যাবো, ইনশাআল্লাহ।
পৃথিবীর দিকে দিকে বাবরী মসজিদ নির্মাণ করবো। যা ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে।

সর্বোপরি ইসলাম ও মুসলমানদের ইতিহাস -ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে আমরা প্রাণপণ সংগ্রাম করে যাবো, ইনশাআল্লাহ।

এই পোষ্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Design & developed by Masum Billah