মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
রাষ্ট্রের পুনর্গঠন : তাত্ত্বিক আলোচনা বনাম বাস্তবতা সৈয়দ শামছুল হুদা ১৮ ভোট কেন্দ্রে কচুয়ার ২ ইউনিয়নের উপ-নির্বাচন কাল উত্তাল পাকিস্তান, ‘ইমরান খানের পদত্যাগ চাই’ প্রেমিকাকে ধর্ষণ করে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলো ছাত্রলীগ নেতা মাওলানা সিরাজীর স্মরণে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্য শাখার ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত তাইওয়ানে হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন ইসরায়েলে অবতরণ করলো আমিরাতের প্রথম ফ্লাইট সিলেটে রায়হান হত্যাকান্ডে প্রধান অভিযুক্ত আকবরকে ধরিয়ে দিলে ১০লক্ষ টাকা পুরস্কার ঘোষণা মেয়র আতিকের পরিবারের ২০ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হাতিরঝিলের সেই অজ্ঞাত লাশের রহস্য উদঘাটন হলো যেভাবে

যিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে ইশা ছাত্র আন্দোলন-এর ৮ দফা সুপারিশমালা

যুবকণ্ঠ ডেস্ক;

যিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে ইশা ছাত্র আন্দোলন-এর ৮ দফা সুপারিশমালা হলো-
#এক. দেশের সর্বস্তরের নারী ও পুরুষদের প্রতি আহ্বান- পুরুষরা নারীকে সম্মান করুন। দৃষ্টি অবনত রাখুন ও নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করুন। অবৈধ সম্পর্ক নয়; বরং বৈবাহিক বৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে নারীত্বের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করুন। নারীগণ চাল-চলন ও পোষাকে শালীনতা বজায় রাখুন। দেশীয় ও মুসলিম সংস্কৃতি পরিপন্থী আচরণ পরিহার করুন। বিবাহবহির্ভূ সম্পর্ক, পরকীয়া ও প্রেমের সম্পর্ক থেকে বিরত রাকুন।
#দুই. পরিবার ও সমাজের প্রতি আহ্বান- আপনার সন্তানকে ধর্মীয় অনুশাসন ও নৈতিক মূল্যবোধ শিক্ষা দিন। সৎসঙ্গে উৎসাহিত করুন। বিবাহ বন্ধনকে সহজ করে তুলুন। যৌন, মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের বিরুদ্ধে ঘৃণা সৃষ্টি ও অপরাধীকে সামাজিকভাবে বয়কট ও প্রতিরোধ গড়ে তুলুন।
#তিন. শিক্ষক, ইমাম ও জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান- যিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ বন্ধে শিক্ষকগণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে, ইমামগণ মসজিদের মিম্বার থেকে সামাজিক সচেতনতা ও জনমত গঠনে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করুন। জনপ্রতিনিধিগণ ধর্ষককে আর্থিক লেনদেন, আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া থেকে বিরত থাকুন এবং নিপীড়িতকে বিচার পেতে ভূমিকা পালন করুন।
#চার. বিচারক ও আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিতদের প্রতি আহ্বান- ব্যভিচার ও ধর্ষণ রোধে আইনের শাসন বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ কার্যকরি শক্তি রয়েছে আপনাদের হাতে। তাই নিপীড়িতের প্রতি সদয় হোন এবং অপরাধীকে বিচারের মুখোমুখী করতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। ধর্ষনের মামলায় আরোপিত ফি বাতিল এবং শুধু আইনের নীতিগত অনুমোদন নয়; বরং দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল ও শরীয়া আইনের মাধ্যমে ধর্ষনের শাস্তি কার্যকর করুন।
#পাঁচ. মিডিয়া ও গণমাধ্যম ও ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান- ধর্ষণ ও ব্যভিচারে উস্কানিমূলক নাটক-সিনেমা, কমিক্স ও বিজ্ঞাপন প্রদর্শনী বন্ধ করুন। অবাধ যৌনাচার, অবৈধ সম্পর্ক, পরকীয়া, লীভ-টু-গেদার তথা অবৈবাহিক সম্মতিসূচক যৌন সম্পর্ক ও নারীকে পন্যরূপে উপস্থাপন থেকে বিরত থাকুন। পর্নোগ্রাফি, অশ্লীল ওয়েব সাইট, ওয়েব সিরিজ এবং ভারতীয় ও পশ্চিমাসহ ভিনদেশী অপসংস্কৃতি বিস্তার, ইতিবাচকভাবে প্রচার বন্ধ করতে কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।
#ছয়. আইন প্রনেতাদের প্রতি বৃটিশ প্রবর্তিত ১৮৬০সালের দন্ড বিধির ধারা ৩৭২, ৩৭৩, ৩৭৫, ৩৭৬, ৪৯৭ এবং ৪৯৮ ধারাগুলো ধর্ষনের পৃষ্ঠপোষকাতায় অনেকাংশে ভূমিকা পালন করে। এক্ষেত্রে এ ধারাগুলো পরিবর্তন করতে হবে এবং শরীয়াহ বোর্ডের মাধ্যমে নতুন আইন প্রণয়ন করতে হবে।
#সাত. সরকারের প্রতি আহ্বান- মাদক উৎপাদক, আমদানী, বৈধাবৈধ মদের বার, নাইট ক্লাব, স্পা এবং সকল প্রকার পতিতাবৃত্তি বন্ধ করুন।
#আট. সর্বোপরি দেশের বিচারব্যবস্থা, সরকার ও বিরোধী দলের প্রতি সারাদেশে সরকারের ছত্রছায়ায় যিনা ব্যভিচার ও ধর্ষকদের উৎপাদন কারখানা বন্ধ করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারী দল, বিরোধী দল শিক্ষক রাজনীতিবীদ, সকল দায়িত্বশীলদের ব্যক্তিদের ঐক্য বদ্ধ ভাবে এ মহামারী থেকে রক্ষা পেতে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে।

এই পোষ্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Design & developed by Masum Billah