বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
চরমোনাই পীর ও মামুনুল হকের কিছু হলে তৌহিদী জনতা বসে থাকবে না মাওলানা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে গাজীপুরে যুব মজলিসের বিক্ষোভ ময়মনসিংহে যুব মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত!! মামুনুল হক যে বক্তব্য দেন তা রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল: রাব্বানী মাস্কের হাটে কারও মুখে মাস্ক নেই কেন রাজধানীর মহাখালীর সাততলা বস্তির আগুনে পুড়ে গেছে ২০০ ঘর ও ৩৫টির বেশি দোকান মুফতি ফয়জুল করীম ও মাও. মামুনুল হকের কিছু হলে তৌহিদী জনতা বসে থাকবে না: মুফতি আবদুল্লাহ ইয়াহইয়া “কথিত ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ কর্তৃক ওলামায়ে কেরামদেরকে বিষোদগার ও ওয়াজ মাহফিলে বাধা দেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন” ইসলামের দৃষ্টিতে মূর্তি ও ভাস্কর্য ভাস্কর্য না করে স্মৃতি মিনার করুন, তাতে বঙ্গবন্ধুর আত্মা শান্তি পাবে : মুফতী ফয়জুল করীম

বিভ্রান্তির সৃষ্টি করতেই এমন ডাহা মিথ্যে প্রতিবেদন করেছে ডিবিসি: জাকারিয়া নোমান ফয়জী

যুবকণ্ঠ ডেস্ক;

সম্প্রতি ডিবিসি নিউজে দেওয়া মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাস সাহেবের সাক্ষাৎকারকে ভিত্তিহিন ও ভূয়া আখ্যায়িত করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জী।

আজ (২১ নভেম্বর) শনিবার সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে মাওলানা জাকারিয়া নোমান বলেন, হেফাজতে ইসলামের সদ্য ঘোষিত কমিটিতে জামায়াতের কেউ নেই। জামায়াতের কেউ-ই হেফাজতের কমিটিতে স্থান পায়নি।

জামায়াতের সাবেক সভাপতি হেফাজতের কমিটিতে পদ পেয়েছেন মর্মে ডিবিসি নিউজে যে প্রতিবেদন প্রচারিত হয়েছে, তা সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও অবাস্তব। বাস্তবতার সাথে এর কোন মিল নেই। জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করতেই এমন ডাহা মিথ্যে প্রতিবেদন করেছে ডিবিসি। আমরা এমন মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনার তীব্র নিন্দা জানাই।

মাওলানা জাকারিয়া নোমান আরো বলেন, আজীবন যিনি চারদলীয় জোটের সাথে রাজনীতি করে চুলদাড়ি পাকিয়েছেন, তাঁর হেফাজতের কমিটিতে জামায়াত খোঁজা বড়ই হাস্যকর বিষয়। বয়োবৃদ্ধ বয়সে তাঁর মুখ থেকে এমন দায়িত্বহীন বক্তব্য আমরা আশা করিনি। তাঁর এমন বক্তব্যে জাতি আশাহত হয়েছেন।

সকলের নিকট প্রশ্ন রেখে জাকারিয়া নোমান ফয়জী বলেন, আজ যাদেরকে জামায়াত ইত্যাদির তকমা লাগিয়ে হেফাজতের কমিটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করার ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে, তারা তো শায়খুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী (রাহ.)এর জীবদ্দশায় হেফাজতের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন।

সেদিন কেন তাঁদের বিরুদ্ধে জামায়াতের অভিযোগ তোলা হয়নি ? এক সময় জমায়াত করলে অন্য দল করতে পারবে না, এর কোন যৌক্তিক ভিত্তি হতে পারে? একসময় জামায়াতের অর্থ যোগানদাতা এখন আওয়ামী লীগের সাংসদ।

মুফতি হারুন ইজহার সহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে বাম পাড়ার মানুষের মত জিহাদী ট্যাগ লাগানো কঠোর সমালোচনা করেন মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জী।

তিনি বলেন, হেফাজতে ইসলাম দেশের সর্ববৃহৎ অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন। দেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরামের ঐক্যবদ্ধ মতামতের ভিত্তিতেই হেফাজতের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। হেফাজতের নতুন কমিটি দেশবাসীর কাছে গ্রহণযোগ্য হয়েছে, এতে সকলের আশার প্রতিফলন ঘটেছে।

বাম মিডিয়ার সহযোগিতায় গুটিকয়েক কুচক্রী হেফাজতের সর্বজন গ্রহণযোগ্য কমিটি নিয়ে অবান্তর ও ভিত্তিহীন প্রশ্ন উত্থাপন করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টা করছে। হেফাজতের নেতৃবৃন্দসহ দেশেবাসীকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান করছি।

এই পোষ্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Design & developed by Masum Billah