সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
২৯শে মে জাতীয় ওলামা মাশায়েখ সম্মেলন গণগ্রেফতার ও হয়রানী বন্ধ করুন: মামুনুল হক মানহানী ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করতে পারবেন: সুপ্রিমকোর্ট আইনজী ৩১৭ বছরের পুরনো মসজিদ উদ্বোধন করলেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী পাথরের ট্রাকে ২কোটি টাকার হেরোইন উদ্ধার – আটক২ সাংসদ বেনজীর আহমেদ করোনায় আক্রান্ত সাভারে জোর করে বের করে দেয়া ভাড়াটিয়াদের রক্ষা করলো পুলিশ আশুলিয়ায় আগুনে পুড়লো ১০টি দোকান। সোনারগাঁও রির্সোটে মাওলানা মামুনুল হক ও তার স্ত্রীকে হেনস্তাকারীদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে। – হেফজতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ যুবলীগ নেতার আস্তানায় দেহ ব্যবসা, পতিতা আটক রিকশায় যাওয়া যাবে বই মেলায় : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

বাংলা ভাষায় এক নির্যাতিত শব্দ ‘সংস্কৃতি’

কাতারস্থ আলনূর কালচারাল সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক মাওলানা ইউসুফ নূর বলেছেন,সংস্কৃতি বলতে শুধু নাটক সিনেমা এবং সঙ্গীত ও সাহিত্যকে বোঝায় না।বরং সংস্কৃতির বলয় আরো প্রশস্ত এবং মানবজীবনে তা আদিগন্ত বিস্তৃত।মানুষের জ্ঞানধারা ও জীবনাচারের আলোর অংশটা শুদ্ধ সংস্কৃতি আর অন্ধকারের দিকটা অপসংস্কৃতি।

আল নূর সেন্টারের গবেষণা বিভাগ আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।গত ২০ ফেব্রুয়ারি দোহা জাদিদ মসজিদে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন আল নূর সংস্কৃতি বিভাগের পরিচালক প্রকৌশলী আবু রাইহান।আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন আল নূর সংস্কৃতি বিভাগের সহযোগী পরিচালক মতিউর রহমান ভুঁইয়া, সহকারী পরিচালক মাওলানা জসিমউদ্দিন

মাশরুফ এবং সংস্কৃতিক সদস্য ও আল জাজিরার এরাবিক ক্যালিগ্রাফার মাওলানা নূরুল হক।কর্মশালায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আল নূর সংস্কৃতি বিভাগের সদস্য মুফতি ফয়জুল্লাহ, শিক্ষা বিভাগের সদস্য মাওলানা ক্বারী ইব্রাহিম এবং গণসংযোগ বিভাগের সদস্য গিয়াসুদ্দিন ও দাবির আকন প্রমুখ।

মাওলানা ইউসুফ নূর বলেন,আরব দেশে সংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব বলতে একজন উঁচু মানের শিক্ষিত ও আদর্শ মানুষকে বোঝায়। অথচ আমাদের দেশে গায়ক অভিনেতা এবং নাট্যকার ও চলচ্চিত্রকাররাই সংস্কৃতিক অঙ্গনের লোক হিসেবে পরিচিত।এর মাধ্যমে সংস্কৃতির জীবনব্যাপী ধারণাকে সংকুচিত করে এর প্রতি চরম অবিচার করা হয়েছে। আসলে সংস্কৃতি মানুষের জীবনাচারের প্রকাশিত অভিব্যক্তি।

তাই আমরা বলি রাজনৈতিক সংস্কৃতি,অর্থনৈতিক সংস্কৃতি,সামাজিক সংস্কৃতি ও ধর্মীয় সংস্কৃতি ইত্যাদি।জীবন জুড়ে যে সংস্কৃতির অবস্থান তাকে ক্ষুদ্র গন্ডিতে আবদ্ধ করা এটা ও সংস্কৃতিক আগ্রাসনের অংশ। সংস্কৃতির বিশুদ্ধ পাঠ অনুশীলনের জন্যই আল নূর সেন্টারের জন্ম। তিনি আরো বলেন,অপসংস্কৃতির আঘাতে আমাদের নৈতিকতা ও মূল্যবোধ,আত্মপরিচয় ও স্বকীয়তার প্রাসাদ ধ্বসে পড়ার উপক্রম। বিশুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমেই এর পুনর্গঠণ সম্ভব।

সভায় বিভাগের বিগত কার্যক্রমের পর্যালোচনা শেষে সদস্যদের সম্মতিক্রমে আল নূর সংস্কৃতিক কর্মসূচী ২০২১ ঘোষণা করা হয়।কর্মসূচীর তালিকায় রয়েছে,শিক্ষার্থীদের জন্য ইসলাম ও বাংলাদেশ বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা,বয়স্কদের ধর্মীয় জ্ঞান প্রতিযোগিতা,নিয়মিত পাক্ষিক আলোচনা,আরবী ও ইংরেজী ভাষায় আলোকিত বাংলাদেশ শীর্ষক ইউটিউব ক্লিপ প্রকাশ,কাতার ও বাংলাদেশের জাতীয় দিবস উদযাপন, বাংলা ভাষা সন্ধ্যা এবং কবিতা ও সাহিত্য আসর, সঠিক ধারায় বাংলা নববর্ষ উদযাপন ও ইসলামী মহাসম্মেলনের আয়ােজন ইত্যাদি।

সভাপতির ভাষণে প্রকৌশলী আবু রাইহান বলেন,আল নূর সেন্টারের সান্নিধ্যে এসে আমি ও আমার পরিবার অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। তিনি কমিউনিটিতে জ্ঞান ও সংস্কৃতির বিকাশে আল নূর কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Design & Developed BY Masum Billah