শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

শিরোনাম:
বিশ্ব মানবতার কণ্ঠস্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী মুসলিম শিক্ষক নেই, ভোলার স্কুলে ইসলাম শিক্ষার ক্লাস হয়নি ৩২ বছর! জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যা বলেছেন ইমরান খান এক বছরের মধ্যে ইসরাইলকে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে হবে: মাহমুদ আব্বাসের আলটিমেটাম আত্মহত্যা নয় নিহত শাহাদাত হত্যাকাণ্ডের স্বীকার মহামারি বড় আকার ধারণ করলে আবারও বন্ধ হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নামের আগে আলহাজ না লেখায় ৫ জনকে কুপিয়ে জখম ডিসেম্বরে চালু হবে ৫জি সেবা: মোস্তাফা জব্বার ছেলে-মেয়ের বিয়ের আগেই পাত্রের মাকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন পাত্রীর বাবা! ইরান-রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করতে চায় তালেবান

কঠোর বিধিনিষেধেও কানায় কানায় পূর্ণ ফেরি

যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুর বাংলাবাজার নৌপথের ফেরিগুলোতে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। আজ বুধবার সকাল থেকে বাংলাবাজার ঘাট থেকে শিমুলিয়ায় আসা বেশির ভাগ ফেরি যাত্রী ও যানবাহনে কানায় কানায় পূর্ণ ছিল। বিকেল চারটার দিকে শিমুলিয়া ঘাট স্বাভাবিক থাকলেও মাঝিকান্দি ঘাটে সাড়ে চার শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় ছিল। পদ্মা পাড়ি দিতে গিয়ে উপেক্ষিত ছিল স্বাস্থ্যবিধি।

উভয় ঘাট–সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জীবিকার তাগিদ, পারিবারিক সমস্যাসহ বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে ঘাটে আসছেন যাত্রীরা। মানবিক দিক বিবেচনা করে তাঁদের আটকে না রেখে নদী পার হতে দেওয়া হচ্ছে।

জানা যায়, সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী ও ব্যক্তিগত যানবাহন আসছে। সেগুলো ঘাটে অপেক্ষমাণ ফেরিতে উঠে মাদারীপুরের দিকে যাচ্ছে। লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রীরা ফেরিতে উঠছেন। মাদারীপুর ঘাট থেকে আসা প্রতিটি ফেরিতে যানবাহনের মধ্যে আছে ট্রাক, অ্যাম্বুলেন্স, মোটরসাইকেল ও প্রাইভেট কার। তবে শিমুলিয়া ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় কোনো যানবাহন ছিল না। বাংলাবাজার ঘাটে দেড় শ ছোট গাড়ি ও তিন শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় আছে।

ঘাট–সংশ্লিষ্ট লোকজন ও স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, করোনা মহামারির কারণে চলাচলে বিধিনিষেধ থাকায় শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে লঞ্চ, স্পিডবোট ও ট্রলার চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারণে যাত্রীদের ফেরিতে পারাপার করা হচ্ছে। ঈদের পরদিন থেকে রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেন মানুষ। তবে যাঁরা ঈদে বাড়ি যেতে পারেননি, তাঁরা এখনো ঢাকা ছাড়ছেন। ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে যোগ দিতে ঢাকার দিকে রওনা করছেন যাত্রীরা। ফলে ঘাটের দুই দিকেই যাওয়া-আসার চাপ আছে। তবে রাজধানীর দিকেই চাপ অনেক বেশি ছিল। ফেরিতে মানুষ, গাড়ি, মোটরসাইকেল সমানতালে আসছে।

শিমুলিয়া ঘাটের ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (টিআই) মো. জাকির হোসেন বলেন, আমাদের এই পারে কোনো চাপ নেই। যানবাহন আসামাত্র ফেরিতে উঠে যেতে পারছে। তবে ৩০ থেকে ৪০টি ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় আছে। বাংলাবাজার ঘাট থেকে যেসব ফেরি আসছিল, সেগুলো যানবাহন, যাত্রী এবং মোটরসাইকেলে পূর্ণ ছিল। এপারে আমরা নিয়ন্ত্রণ করছি। ওই পার থেকে এলে আমাদের তেমন কিছু করার থাকছে না।

বাংলাবাজার ঘাটের টিআই মো. জামাল হোসেন বলেন, দুপুরের পর থেকে প্রায় দুই ঘণ্টা আমাদের পারে কোনো ফেরি ছিল না। এর ফলে ঘাটে এসে যানবাহন জড়ো হতে থাকে। বিকেল থেকে ঘাটে তিন শতাধিক পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক ও দেড় শর বেশি ছোট গাড়ি পারাপারের অপেক্ষায় আছে।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, গার্মেন্টস খোলা। এ ছাড়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠান খোলা। সেই সঙ্গে বিদেশ গমন, পারিবারিক বিভিন্ন ঝামেলা দেখিয়ে মানুষ ঘাটের দিকে আসছে। মহাসড়কের ঝামেলা এড়িয়ে যারা ঘাটে আসতে পারছে, মানবিক দিক বিবেচনায় এনে আমরা তাদের নদী পার হওয়ার জন্য ছেড়ে দিচ্ছি।

শিমুলিয়া ঘাটের বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল আহমেদ বলেন, কয়েক দিন ধরে ঢাকামুখী চাপ চলছে। বাংলাবাজার থেকে আসা ফেরিগুলো যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই করে আসছে। স্রোতের কারণে ফেরি চলাচল করতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। বিকেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। নদীতে সাতটি ফেরি চলাচল করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah