শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

সন্তান লালন-পালনে ইসলামের দিকনির্দেশনা

আমাদের জীবনের প্রতিটি কণা মহান আল্লাহর দান। তাই আমাদের অস্তিত্ব ও জীবন আল্লাহর তায়ালার কাছে চিরঋণী। আমাদের উপর আল্লাহর অফুরন্ত নেয়ামতরাজির মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি নেয়ামত হল আমাদের সন্তানেরা। নিঃসন্তান দম্পতি কিংবা সন্তানহারা মাকে জিজ্ঞেস করলে বুঝা যায় যে, সন্তান কত বড় নিআমত। আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তোমাদেরই মধ্য হতে তোমাদের জন্য স্ত্রী সৃষ্টি করেছেন এবং তোমাদের স্ত্রীদের থেকে তোমাদের জন্য পুত্র ও পৌত্রাদি সৃষ্টি করেছেন। আর ভালো-ভালো জিনিসের থেকে রিযিকের ব্যবস্থা করেছেন। তবুও কি তারা ভিত্তিহীন জিনিসের প্রতি ঈমান রাখবে আর আল্লাহর নেয়ামতসমূহের অকৃতজ্ঞতা করবে।’ (সুরা নাহল: ৭২)

সম্পদের প্রাচুর্যে পূর্ণ একটি পরিবার। তবুও তারা বিষণ্ণ। কারণ তাদের কোল উজ্জ্বল করেনি কোনো ফুটফুটে শিশুর নিষ্পাপ হাসি। আল্লাহ যাকে দান করেন সে-ই কেবল অধিকারী হতে পারে এ নেয়ামতের। ইরশাদ হয়েছে, ‘আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর রাজত্ব আল্লাহরই। তিনি যা চান সৃষ্টি করেন। যাকে চান কন্যা দেন এবং যাকে চান পুত্র দেন। অথবা দান করেন পুত্র ও কন্যা উভয়ই। আবার যাকে ইচ্ছা বন্ধ্যা করে দেন। নিশ্চয়ই তিনি সর্বজ্ঞ, সর্বশক্তিমান।’ (সুরা শুরা : ৪৯-৫০)

সন্তান গুরুত্বপূর্ণ আমানত:
সন্তান আল্লাহর দান। আল্লাহর পক্ষ থেকে বড় এক আমানত। আল্লাহ এর মাধ্যকে পরীক্ষা করেন। বান্দা এই আমানতের যথাযথ হেফাযত করে কি না। সন্তান-সন্ততির মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা বান্দাকে দুইভাবে পরীক্ষা করেন। এক. সন্তানের কারণে বান্দা আল্লাহর হুকুম লঙ্ঘন করে কি না। দুই. বান্দা সন্তানকে আমানত মনে করে কি না এবং সে আমানতের হেফাযতে যত্নবান হয় কি না। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘জেনে রেখ, তোমাদের সম্পদ ও তোমাদের সন্তান-সন্ততি তোমাদের জন্য এক পরীক্ষা। আর মহা পুরস্কার রয়েছে আল্লাহরই কাছে।’ (সূরা আনফাল : ২৮)

ইমাম ইবনে জারীর তবারী রাহ. বলেন, আল্লাহ তায়ালা মুমিন বান্দাদের লক্ষ করে বলছেন, ‘হে মুমিনগণ! জেনে রেখ, তোমাদেরকে যে ধন-সম্পদ ও সন্তানাদি দান করেছি এসব তোমাদের জন্য পরীক্ষার বস্তু। এর মাধ্যমে তোমাদের আমি পরীক্ষা করব। এটা দেখার জন্য যে, সন্তান-সন্ততি ও অর্থ-কড়ির ক্ষেত্রে তোমরা আল্লাহর হক কতটুকু আদায় কর এবং দ্বীনের বিধিনিষেধ কী পরিমাণ মান্য কর।’ (তাফসীরে তাবারী ১১/১২৬) আরেক হাদীসের ঘোষণা, ‘আল্লাহ তায়ালা যদি বান্দাকে কারো দায়িত্বশীল বানান আর সে নিজ অধীনস্তদের কল্যাণের ব্যাপারে যত্নশীল না হয়, তাহলে সে জান্নাতের ঘ্রাণও পাবে না।’ (সহীহ বুখারী, হাদীস ৭১৫০)

মোটকথা, সন্তান-সন্ততি পিতা-মাতার নিকট আল্লাহর পক্ষ থেকে আমানত। তাদের ঈমান-আকীদা, বোধ-বিশ্বাস, চিন্তা-চেতনা, আমল-আখলাক, জীবন যাপন প্রভৃতির ব্যাপারে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেওয়া মাতা-পিতার কর্তব্য।

পিতা-মাতার দায়িত্ব ও কর্তব্য:
সন্তান আল্লাহর পক্ষ থেকে নেয়ামত এবং পিতা-মাতার নিকট আমানত। পিতা-মাতার কর্তব্য হল, সন্তানকে আল্লাহর অনুগত বান্দা হিসাবে গড়ে তোলা এবং শয়তানের সবধরনের গোলামি থেকে দূরে রাখা। শয়তান চায়, প্রত্যেকটা মানবশিশুকে অঙ্কুরেই ধ্বংস করতে। জান্নাত থেকে বিতাড়িত হওয়ার সময়ই তার অঙ্গিকার ছিল আদমসন্তানকে বিপথগামী করা। তখন আল্লাহ তায়ালা তাকে বলেছিলেন, ‘যাও তাদের সম্পদ ও সন্তান-সন্ততিতে অংশীদার হয়ে যাও এবং তাদেরকে যত পার প্রতিশ্রতি দাও। বস্তুত শয়তান তাদেরকে যে প্রতিশ্রুতি দেয় তা ধোঁকা ছাড়া কিছুই নয়।’ (সূরা ইসরা : ৬৪) অর্থাৎ শয়তান চাইবে সম্পদ ও সন্তানকে বিপথে পরিচালিত করতে। কিন্তু বান্দাকে আল্লাহ তায়ালা সে সম্পর্কে আগেই সতর্ক করে দিয়েছেন। অভিভাবকের কর্তব্য পালনের মূল পর্বটা এখানে এসেই আবর্তিত হয়।

শিশুরা যে কোনো জিনিস খুব সহজে ধারণ করতে পারে। তাদের স্মৃতিতে তা যেন খোদাই হয়ে যায়। গুণীজনেরা যথার্থই বলেছেন, ‘শৈশবের শিক্ষা যেন পাথরে অংকিত নকশা।’ সুতরাং সন্তানকে সুসন্তান হিসাবে গড়ে তোলার মূল সময় হচ্ছে শৈশব কাল।

শিশুদের প্রতি কোমল হওয়া : 
বড়দের কাছ থেকে আমরা ভালো ব্যবহার প্রত্যাশা করি। তাহলে ছোটদের প্রতি কেন আমরা তা করি না? আমরা যদি আমাদের ছোটদের সঙ্গে ভালো ও কোমল ব্যবহার করি, তাহলে বড়রাও আমাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করবেন। নবীজির শিক্ষা হলো, কোমলতা অবলম্বন করো। কঠোরতা পরিহার করো। (মুসলিম, হাদিস : ১৭৩২) বাস্তবেও কোমলতায় যে ফায়দা হয়, কঠোরতার দ্বারা তা হয় না। সুন্দর করে বুঝিয়ে বললে ছোটরা সব কথাই শোনে। আর ধমক দিয়ে কিছু বললে তারা আরো বেঁকে বসে।

রাগের সময় প্রহার না করা: 
হজরত থানভি (রহ.) বলেন, ‘রাগান্বিত অবস্থায় কখনো শিশুকে প্রহার করবে না। শাস্তির প্রয়োজন হলে রাগ প্রশমিত হওয়ার পর চিন্তাভাবনা করে শাস্তি দেবে। মুফতি মুহাম্মদ শফি (রহ.) বলতেন, অন্যান্য গুনাহ তো তাওবার মাধ্যমে মাফ হতে পারে। কিন্তু শিশুদের ওপর জুলুম করা হলে এর ক্ষমা পাওয়া খুবই জটিল। কেননা এটা বান্দার হক। আর বান্দার হক শুধু তাওবার দ্বারা মাফ হয় না। আগে যার হক নষ্ট করা হয়েছে, তার কাছে মাফ চাইতে হয়। শিশুর কাছ থেকে মাফ পাওয়া সম্ভব নয়। কারণ নাবালেগের ক্ষমা শরিয়তের দৃষ্টিতে গ্রহণযোগ্য নয়। এমনকি শিশু যদি মুখে বলেও যে আমি মাফ করলাম, তবু তা গ্রহণযোগ্য নয়।

যা দেখে তাই শেখে শিশুরা: 
আমাদের শিশুরা অনুকরণপ্রিয়। তারা দেখে দেখে শেখে। শুনে শুনে শেখে। প্রয়োজন শুধু বড়দের সচেতনতা। শিশু তার বাবার কাছ থেকে শেখে। মায়ের কাছ থেকে শেখে। শিক্ষকের কাছ থেকে শেখে। তার চারপাশের মানুষের কাছ থেকে সে শিখতে থাকে। ফলে সবাইকে শিশুর সামনে সচেতনভাবে চলাফেরা করতে হবে। শিশুকে বলা হয় ‘কাদামাটি’। আপনি যেভাবে তাকে গড়তে চাইবেন, সেভাবে সে গড়ে উঠবে। যা শেখাবেন তা-ই শিখবে।

শিশুকে অহেতুক বিষয় শেখানো উচিত নয়: 
অনেক মা-ই শিশুর মূল্যবান সময়কে অহেতুক কাজের মধ্যেই পার করে দেন। যখন তাকে কালিমা শেখানো দরকার, তখন শিক্ষা দেওয়া হয় ‘ডগ, ক্যাট, হাট্টি মাটিম টিম…।’ আর এসব নিয়ে এতটাই ব্যস্ত হয়ে পড়েন, যেন শিশুর প্রতি এগুলোই তাদের কর্তব্য। ফলে সেই শিশু ঈমানি শিক্ষা আর পায় না। আল্লাহর প্রতি তার আস্থা পয়দা হয় না। এমনকি নবীর পরিচয়ও সে জানতে পারে না। আফসোস! মায়েরা আজ কোথায় ঠেলে দিচ্ছেন তাঁদের কলিজার টুকরা সন্তানকে।

ছোট থেকেই শিশুর ত্রুটি সংশোধন করা: 
শিশুদের ছোট ছোট ত্রুটি, অহংবোধ, অন্যকে কষ্ট দেওয়ার প্রবণতা শৈশবেই সংশোধন করা উচিত। কাউকে গালি দিলে কিংবা কোনো আঘাত করলে সঙ্গে সঙ্গে তার থেকে মাফ চাইয়ে নেয়াতে হবে। যাতে সে অন্যায়টা বুঝতে পারে এবং তার ভেতরে মাফ চাওয়ার গুণ তৈরি হয়।

মা হবেন আসল দায়িত্ববান : 
শিশুর মনমানসিকতা, ধ্যান-ধারণা, বোধ-বিশ্বাস, রুচি-শিক্ষা, স্বভাব-সভ্যতা, ভদ্রতা তথা ভালো গুণগুলো একজন মা-ই সহজে তার সন্তানের মধ্যে প্রবেশ করাতে পারেন। ইতিহাসের পাতায় আমরা যত মহান ব্যক্তিকে দেখতে পাই, তাদের সফলতার পেছনে দেখা যায়, মায়ের অবদান বেশি। মা হলেন সন্তানের জন্য প্রথম পাঠশালার প্রথম শিক্ষক। তাই মাকে হতে হবে সন্তানের প্রতিটি ক্ষেত্রে সজাগ ও দায়িত্ববান।

মহাকবি আল্লামা ইকবাল বলতেন যে বিলাত থেকে ফেরত আসার পরও যখন আল্লাহকে ভুলিনি, তখন আশা করা যায় আর ভুলব না। যখন লোকেরা বলত, ইকবাল! বিলাতের ওই চাকচিক্য দেখেও তুমি কী করে আল্লাহকে স্মরণ রাখতে পারলে? উত্তরে বলতেন, সেই ছোটকালে আমার মা আমার চোখে যে মুহাম্মদি সুরমা-ইসলামী শিক্ষা লাগিয়ে দিয়েছেন, তার বরকতে এত কিছু সত্ত্বেও আমি আল্লাহকে ভুলিনি।

মা-পিতার কাজের প্রভাব :
মা-বাবার সব কাজের প্রভাব পড়ে সন্তানের ওপর। সন্তান যদি বাবাকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে আদায় করতে দেখে, তাহলে সন্তানও মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায় করবে। তেমনিভাবে সন্তান যদি মাকে জায়নামাজে দেখে, তাহলে অবুঝ বয়সেও সে মায়ের সঙ্গে নামাজ পড়বে, সেজদা দেবে। মূলত সন্তান শিশুকাল থেকে মা-বাবাকে যেমন দেখবে, নিজের জীবনকে তেমনভাবেই সাজাবে।

গর্ভবতী মায়ের কাজের প্রভাব: 
গর্ভকালীন মায়ের সব কর্মের প্রভাব পড়ে সন্তানের ওপর। মায়ের একটু সচেতনতা দ্বারা সন্তান সুস্থ, সুদর্শন, বুদ্ধিমান, নেককার ও দ্বিনদার হতে পারে। আবার সামান্য একটু অসচেতনতা দ্বারা সন্তান অসুস্থ, ত্রুটিপূর্ণ, দুর্বল, নির্বোধ ও বেদ্বিন হতে পারে। তাই এ অবস্থায় মাকে বেশি বেশি নেক আমল করতে হবে। গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে হবে। ফরজ, ওয়াজিব ও সুন্নত নামাজের পাশাপাশি নফল নামাজও পড়তে হবে। ঠিকমতো খাবারদাবার খেতে হবে। রাত্রি জাগরণ বর্জন করতে হবে। সব সময় হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করতে হবে। সুযোগ পেলেই কোরআন তিলাওয়াত করতে হবে। অভিজ্ঞতায় দেখা যায়, হাফেজা ও কোরআন তিলাওয়াতকারী মায়ের সন্তান অতিমাত্রায় মেধাবী হয়। একজন নিষ্ঠাবান ‘মা’ দ্বারা একটি নিষ্ঠাবান জাতিরও জন্ম হয়।

কান্না থামানোর লক্ষ্যে মিথ্যা বলা: 
শিশুর কান্না থামানোর জন্য বা তার কাছ থেকে কোনো কাজ আদায় করার জন্য মিথ্যা বলা জায়েজ নয়। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আমের (রা.)-এর বর্ণনা, একবার আমার আম্মা কিছু একটা দেবেন বলে আমাকে কাছে ডাকলেন। নবীজি (সা.) তখন আমাদের বাড়িতে বসা ছিলেন। তিনি আমার আম্মাকে বললেন, তুমি কি সত্যিই তাকে কিছু দেবে? আম্মা বললেন, হ্যাঁ! তাকে খেজুর দেওয়ার ইচ্ছা ছিল। নবীজি বললেন, যদি তুমি তাকে কিছু না দিতে তবে তোমার এ কথাটি মিথ্যা বলে গণ্য হতো। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৯৯১)

শিশুর মনে আল্লাহর ভয় জাগ্রত করা: 
শিশুর কচি অন্তরে আল্লাহর ভয় জাগ্রত করে দিতে হবে। মা-বাবা যদি শিশুকে শাসনের ভয় দেখিয়ে বা অন্যরা খারাপ বলবে এই ভয় দেখিয়ে মন্দ অভ্যাস থেকে নিবৃত্ত করতে চান, তবে এটা হবে সাময়িক। মা-বাবা বা অন্য সবার অগোচরে, যেখানে শাসন কিংবা লোকলজ্জার ভয় থাকবে না, সেখানে শিশু দ্বিতীয়বার এ ধরনের কাজে উৎসাহী হতে পারে। কিন্তু যদি তাকে বুঝিয়ে দেওয়া যায় যে এটা পাপ। এমন করলে আল্লাহ নারাজ হবেন। আল্লাহ সব সময় সবাইকে দেখছেন। কোনো কিছুই তার দৃষ্টির আড়ালে নয় এবং তার অন্তরেও আল্লাহর ভয় বসে যায়, তাহলে শিশুর সব বদ-অভ্যাস স্থায়ীভাবে ঠিক হয়ে যাবে।

শিশুকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে: 
শিশু-কিশোরদের ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার জন্য নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘তোমার সন্তানকে অন্যের ওপর নির্ভরশীল করে রেখে যাওয়ার চেয়ে তাদের অপেক্ষাকৃত সচ্ছল রেখে যাওয়া অনেক ভালো।’ (বুখারি, হাদিস : ৬৭৩৩) তাই বৈধ পন্থায় তার জন্য কিছু সম্পদ রেখে যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। তাকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে। সে শিক্ষিত হলে সারা জীবনই সচ্ছল থাকবে, পরনির্ভরশীল হবে না।

সন্তানকে পর্যাপ্ত সময় দেওয়া:
সন্তানকে সুন্দর আচার-ব্যবহার শিক্ষা দেওয়ার প্রধান দায়িত্ব মা-বাবার ওপর। কিন্তু তারা আজকাল অফিস-আদালতের কাজকর্মে এতটাই ব্যস্ত থাকেন যে সন্তানকে সময়ই দিতে পারেন না। সকালে সন্তানকে ঘুমে রেখে অফিসে যান। আবার বাসায় এসে ঘুমে পান। ছুটির দিন না হলে সাধারণত দেখা-সাক্ষাৎই হয় না। সন্তান লালন-পালনের দায়িত্ব বাসার কাজের বুয়াদের ওপর ছেড়ে দেন। ফলে সে সারা দিন যার কাছে থাকছে, তার আচার-আচরণ শিখছে। শিক্ষিত বহুগুণের অধিকারী মা-বাবার অনেক কিছুই সন্তান শিখতে পারছে না।

মা-বাবার কর্তব্য :

শিশু যখন কথা বলতে শুরু করে, তখন তাকে সর্বপ্রথম ‘আল্লাহ’ ও ‘মুহাম্মদ’; এরপর ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ ও ‘মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ’ ইত্যাদি শিক্ষা দেওয়া। কোরআন শিক্ষা দেওয়া। দ্বিনের অতিপ্রয়োজনীয় বিষয়াদি শিক্ষা দেওয়া। মাঝেমধ্যে তাকে নবী-সাহাবা ও মহামনীষীদের উপদেশমূলক ঘটনা শোনানো। শিশুর কোনো সুন্দর আচরণ বা প্রশংসনীয় কাজ চোখে পড়লে, তার প্রশংসা করা, পুরস্কার দেওয়া। অমার্জিত পোশাক থেকে বিমুখতা সৃষ্টি করা। বেশি দামি পোশাকে অভ্যস্ত না করা, যাতে সে অহংকারের ছোবল থেকে রক্ষা পায়। তাদের সব ইচ্ছা পূরণ না করা। পাঠশালায় যাওয়ার ব্যাপারে কখনো শিথিলতা প্রদর্শন না করা। সন্তানের সামনে উচ্চৈঃস্বরে কথা না বলা। যথাসম্ভব তাকে চোখে চোখে রাখা, যাতে কোনো খারাপ সঙ্গ গ্রহণ না করে বসে। তাকে ব্যস্ত রাখার জন্য হাতে ফোন বা ট্যাবের মতো যন্ত্র ধরিয়ে দেওয়া তার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

ছোট থেকেই যেসব বিষয় শেখাতে হবে: 
বিনয়ী আচরণ। সঙ্গী-সাথিদের সম্মান করা। কথাবার্তায় কোমলতা। ত্যাগেই সম্মান; গ্রহণে নয়। মানুষের জিনিস নেওয়া নিন্দনীয়। অন্যদের দিকে পিঠ দিয়ে না বসা। কারো পায়ের ওপর নিজের পা না রাখা। বড়দের প্রশ্নের শুধু জবাব দেওয়া; যতটুকু জিজ্ঞেস করা হয় শুধু ততটুকু বলা। বড়দের কথা মনোযোগসহ শোনা। বড় কেউ এলে তার সম্মানে উঠে জায়গা খালি করে দেওয়া। কুসঙ্গ থেকে দূরে থাকা। মা-বাবা, শিক্ষক, গুরুজন এবং আত্মীয়-অনাত্মীয়, চেনা-অচেনা সব মুরব্বিকে মান্য করা। যখন সে ভালো-মন্দ বোঝার বয়সে উপনীত হবে, তাকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে অভ্যস্ত করে তুলতে হবে। রমজান মাসে যে কয়দিন পারে, রোজা রাখতে বলতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah