শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন

ভাঙছে মসজিদ, পড়ছে নামাজ

যুবকণ্ঠ ডেস্ক;

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় হঠাৎ করেই ভাঙন শুরু হয়েছে। পদ্মায় নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে চার নম্বর ফেরিঘাট এলাকার একটি মসজিদের বেশিরভাগ অংশ। তলিয়ে গেছে বেশ কয়েকটি বসতবাড়ি। ভাঙন আতঙ্কে আছেন নদীপাড়ের মানুষ।

সোমবার (৩০ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ফেরিঘাটের সিদ্দিক কাজীপাড়া এলাকায় ভাঙন শুরু হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, একটি মসজিদের এক তৃতীয়াংশসহ অন্তত পাঁচটি বসতবাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এরইমধ্যে ভাঙনের মধ্যে নামাজ আদায় করছেন অনেকেই। ভাঙন রোধে এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

সোমবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম, গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা মুন্সি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজিজুল হক খান মামুন, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান রহমান মণ্ডলসহ আরও অনেকে।

তবে স্থানীয়রা আরটিভি নিউজের কাছে অভিযোগ করেছেন, ভাঙন রোধে কাজের গতি কম। আর শুকনো মৌসুমে কাজ না করার কারণেই এখন ভাঙনের কবলে পড়েছেন এই এলাকার মানুষ।

দৌলতদিয়া ২ নং ওয়ার্ড সদস্য (মেম্বার) আশরাফুল ইসলাম আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, ভাঙন আতঙ্কে এলাকার অর্ধশতাধিক বসতবাড়িসহ বেশ কয়েকটি স্থাপনা সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে ৩, ৪ ও ৫ নম্বর ফেরিঘাট এবং ঘাট এলাকার বসতবাড়ি।

বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-সহকারী প্রকৌশলী মকবুল হোসেন আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, ভাঙন রোধে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

সোমবার দুপুরে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে হঠাৎ নদী ভাঙ্গন পরিদর্শনে এসে রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, ভাঙন রোধে এই এলাকায় স্থায়ী কাজ হবে। আপাতত বালুর বস্তা ফেলে ভাঙন রোধে কাজ করছে বিআইডব্লিইটিএ। কাজের গতি বাড়াতে বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-সহকারী প্রকৌশলী মকবুল হোসেনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে শুকনো খাবার ও বাড়ি নির্মাণের জন্য টিন দেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah