শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন

মাইজভাণ্ডারী ভক্তের মৃত্যু: লাশ ঘিরে গান বাজনা, দাফন করা হল ৯ দিন পর!

যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

মৃত্যুর পর ৯ দিন লাশ ছিল নিজের পাকা ঘরে। এই নয় দিনই সেই।পাকা ঘর কেন্দ্র করে জমেছিল গান বাজনার আসর। তবে ঘটনা জানাজানি হয়ে পড়লে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তৈয়ব আলী নামের সেই মাইজভাণ্ডারী ভক্তের লাশ বের করে আনা হয়। পরে দাফন করা হয়েছে ইসলামি রীতি মেনে। পুরো ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

সোমবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে মাগুরা পৌর এলাকার কাশিনাথপুর কারিগর পাড়ায় আলেম ওলামাদের নেতৃত্বে হাজারো মানুষ জড়ো হয়ে একটি পাকা ঘর ভেঙ্গে তৈয়ব আলীর মৃতদেহ বের করা হয়। এরপর ওই গ্রামের গোরস্থানে মৃতদেহটি দাফন করা হয়েছে। এসময় আলেমদের পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয় হয়।

কাশিনাথপুর গোরস্থান মসজিদের ইমাম উজির আলী জানান, কারিগর পাড়ার বাসিন্দা তৈয়ব আলী (৬৫) জীবদ্দশায় মাইজভাণ্ডারী ও লালন ভক্ত ছিলেন। গত ২২ আগস্ট বার্ধক্যজনিত কারণে নিজ ঘরেই মারা যান তিনি। গ্রামবাসীরা স্বাভাবিক নিয়মে তার দাফন করতে চাইলে বাদ সাধেন তার ভাতিজা আহাদ আলী। মৃত ব্যক্তির অসিয়ত মোতাবেক জানাজা শেষে জানালা বিহীন একটি পাকা ঘরে রেখে পরদিন দরজা ইট দিয়ে বন্ধ করে রাখা হয় তার লাশ।

এই ঘটনার পরপরই পার্শ্ববর্তী ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া ও যশোরসহ বিভিন্ন জেলার মাইজভাণ্ডারী ভক্ত অনুসারীরা ওই ঘরের সামনে মোমবাতি জ্বালিয়ে গান বাজনা শুরু করেন। একপর্যায়ে তা গ্রামবাসীদের মধ্যে ব্যাপক চাঞ্চল্যের জন্ম দেয়।

শেষ পর্যন্ত অবশ্য, ইসলামে এ ধরনের দাফন জায়েজ না থাকায় গ্রামবাসী, আলেম ওলামা, জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে মৃত্যুর ৯ দিন পর ঘর ভেঙ্গে লাশ কবর স্থানে দাফন করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah