রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:০১ অপরাহ্ন

যে ৩ আমলে মন ভালো থাকবে

যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

বিপদ-আপদ মানবজীবনের নিত্যসঙ্গী। মানসিক অস্থিরতা জীবনেরই অংশ। বিষণ্নতা মানুষকে জেঁকে ধরে সময়ে-অসময়ে। মূলত এসবের নানা কারণ রয়েছে। পারিবারিক ও সামাজিক বিভিন্ন আচরণ ও অবস্থা, কারও থেকে আঘাত পাওয়া, নিজের মতো করে কোনো কিছু করতে না পারা; ইত্যাদি কারণে মূলত মনো-অবসাদ পেয়ে বসে।

বিপদ-আপদ আল্লাহর পক্ষ থেকে আজাব হতে পারে, রহমতও হতে পারে। বিপদ আসার পর যদি গুনাহ বেড়ে যায়, আমল কমে যায়, তাহলে বুঝতে হবে যে এটি আল্লাহর পক্ষ থেকে আজাব। ইসলামের শিক্ষা হলো- নেতিবাচক বিষয়গুলো ভুলে যাওয়া। বেশি সময় ধরে মনে পুষে রেখে কষ্ট না পাওয়া। প্রফুল্ল ও হাসিখুশি থাকার জন্য সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও ভালোবাসার প্রয়োজন অনেক বেশি। মন প্রফুল্ল রাখার ও হৃদয় প্রশান্ত রাখার বিভিন্ন আমল আমরা ধারাবাহিকভাবে উল্লেখ করব ইনশাআল্লাহ। এখানে ৩টি সুন্নত বা উপায় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে, যেগুলো আমাদের আনন্দিত ও প্রফুল্ল রাখে। পারস্পরিক সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি বৃদ্ধি করে।

একে-অপরকে সালাম দেওয়া
বেশি পরিমাণে একে অন্যকে সালাম দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে সম্প্রীতি সৃষ্টি হয়। অন্তরে প্রশান্তি লাভ হয়। সওয়াবে জীবন ধন্য হয়। সালাম মানে পারস্পরিক শান্তির দোয়া করা। পুরুষ ও নারী সবার মধ্যে এ গুণটি থাকা উচিত। নারী-পুরুষ সবাইকে উদ্দেশ করে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা তোমাদের মধ্যে সালামের প্রসার ঘটাও।’ (মুসলিম, হাদিস : ৫৪)

সুধারণা পোষণ করা
সমাজিক শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, মানসিক প্রশান্তি অটুট ও পারস্পরিক ভ্রাতৃত্ববোধ সুসংহত রাখতে একে অন্যের প্রতি সুধারণা অত্যন্ত জরুরি। বলতে গেলে এর বিকল্প হয় না। পারস্পরিক সুধারণা সমাজে কল্যাণ বয়ে আনে। ভ্রাতৃত্ববোধ ও মায়ার বন্ধন মজবুত রাখে। তাই প্রত্যেকের উচিত একে অন্যের প্রতি সুধারণা রাখা। আল্লাহর রাসূল (সা.) হাদিসে বলেছেন, ‘সুন্দর ধারণা সুন্দর ইবাদতের অংশ।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৯৯৩)

হাসিমুখে কথা বলা
হাসিমুখে কথা বলা আল্লাহ রাসূল (সা.)-এর আদর্শ। পারস্পরিক সাক্ষাতের অনন্য সৌন্দর্যও হাসিমুখে কথা বলা। যারা এ গুণের অধিকারী, তাদের সবাই পছন্দ করে। এর মাধ্যমে মনও বেশ প্রফুল্ল থাকে।

নানা প্রয়োজনে যখন একে-অপরের সঙ্গে কথা বলতে হয়, তখন হাসিমুখে কথা বলা কতটুকু ফলপ্রসূ বলার অপেক্ষা রাখে না। এছাড়াও হাসিমুখে কথা রাসুল (সা.)-এর সুন্নত। তিনি সবার সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলতেন। আবদুল্লাহ ইবনে হারেস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে তিনি বলেন, ‘মুচকি হাসিতে আল্লাহর রাসূলের মতো অগ্রগামী কাউকে আমি দেখিনি। (শামায়েলে তিরমিজি, হাদিস : ২২৭)

মহান আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে সব বিপদ-আপদ থেকে হেফাজত করুন। আমিন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah