বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

ভাইয়া, আমার নানির বাড়ি ঈশ্বরদীতে বিমানবন্দর চালু করুন: প্রতিমন্ত্রীকে রেলমন্ত্রীর স্ত্রী

 যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রী শাম্মী আকতার মনি তার নানির বাড়িতে বিমানবন্দর চালুর দাবি জানিয়েছেন। বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীর কাছে এই দাবি জানিয়েছেন মন্ত্রীপত্নী।

বৃহস্পতিবার সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইট চালুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী ও বিমান প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে অংশ নেন শাম্মীও। শাম্মী আক্তার বলেন, আগে ঢাকায় এসে কক্সবাজারের ফ্লাইটে উঠতে হতো। এখন সৈয়দপুর থেকেই সরাসরি বিমানে কক্সবাজার যাওয়া যাবে। 

এ সময় বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর উদ্দেশে মন্ত্রীপত্নী বলেন, আমার নানির বাড়ি ঈশ্বরদীতে। কিন্তু সেখানকার বিমানবন্দরটি বন্ধ। জানি না কেন বন্ধ। আমার একটা দাবি ভাইয়ার (বিমান প্রতিমন্ত্রী) কাছে, তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেন বিমানবন্দরটি আবারও চালুর প্রস্তাব তোলা হয়। তাহলে ঈশ্বরদীর যাত্রীদের উপকার হতো।

এদিন সৈয়দপুর-কক্সবাজার রুটে প্রথমবারের মতো সরাসরি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট চালু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই ফ্লাইটের উদ্বোধন করেন। দুপুর ১২টায় সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে ছেড়ে যায় বিমানের ফ্লাইট বিজি-৫৯২। প্রতি বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ২০ মিনিটে সৈয়দপুর থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে বিমান। আর প্রতি শনিবার দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে কক্সবাজার থেকে সৈয়দপুরের পথে রওনা দেবে একটি ফ্লাইট।

এ উপলক্ষে সৈয়দপুর টার্মিনালে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন- দেশবরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও নীলফামারী-২ আসনের সাংসদ আসাদুজ্জামান নূর, নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান, সংরক্ষিত আসনের সংসদ রাবেয়া আলীম, বিমান বাংলাদেশ ব্যবস্থাপনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান, বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভুঞা, নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএম মোক্তারুজ্জামান, রেলমন্ত্রীর সহধর্মিণী শাম্মী আকতার মনি প্রমুখ।

রেলমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে রেল, বিমান, নৌ ও সড়কপথে ব্যাপক উন্নয়ন করা হচ্ছে। এই বিমানবন্দরে সৈয়দপুর থেকে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে বিমান চালু হওয়ায় আর পিছিয়ে থাকবে না। তিনি বলেন, রেলের জায়গা দখল করে ঘরবাড়ি তৈরি করেছেন আবার তারাই নাকি নেতা। এর আগে যারা ক্ষমতায় ছিলেন তারা রেলকে ধ্বংস করে দিয়েছেন, সংকুচিত করেছেন রেলকে। বর্তমান সরকার রেলওয়ে কে সম্প্রসারিত করছে। রেলের জায়গাগুলো একটি ব্যবস্থাপনার আওতায় আনা হচ্ছে।

তিনি উল্লেখ করে বলেন, চট্টগ্রাম-দোহাজারি রেলপথের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে সৈয়দপুর থেকে কক্সবাজারে সরাসরি ট্রেন চালানোর ইচ্ছে রয়েছে। আশা করি, প্রধানমন্ত্রীর বৈপ্লবিক পরিবর্তনের সুফল মানুষ পাচ্ছেন।

মন্ত্রী বিএনপি-জামায়াতের সমালোচনা করে বলেন, অপশক্তি বসে নেই। তারা আমাদের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে চায়। ঐক্যবদ্ধভাবে তাদের প্রতিহত করতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর ১০০ বছরের ডেলটা প্রকল্প সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশটা হবে একটি উন্নত দেশ। সেই ধারাবাহিকতায় আমরা কাজ করছি। সড়ক, আকাশ, নৌ ও রেলপথকে আরও গতিশীল করতে গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

বিমান বাংলাদেশ ব্যবস্থাপনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান বলেন, সপ্তাহে বৃহস্পতিবার সৈয়দপুর থেকে এবং শনিবার কক্সবাজার বিমানের ফ্লাইট চলাচল করবে। পরে প্রধান অতিথি ফিতা কেটে বিমান চলাচলের উদ্বোধন করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved ©2020 jubokantho24.com
Website maintained by Masum Billah