শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:১০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে ভীত বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে প্রভাব বিস্তারে ৩ পরাশক্তি লড়ছে কুরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে সুইডিশ পণ্য বর্জনের আহ্বান হেফাজতের ‘বাবার পরিচয়হীন সন্তানের অভিভাবক মা হবে’ মর্মে রায় দেশের ধর্ম ও সংষ্কৃতির সাথে সাংঘর্ষিক আওয়ামী লীগ মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করে: নানক প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে ছাত্র জমিয়ত ঢাকা মহানগর উত্তরের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ৪ দিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি পরিকল্পনামন্ত্রী কাল পাঠ্যবইয়ের ভুল নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন দেশের আকাশে পবিত্র রজব মাসের চাঁদ দেখা গেছে আমরা চাই দেশে সত্যিকার ইসলামের জ্ঞান চর্চা হোক: প্রধানমন্ত্রী

আর্সেনিক দূষণে জন্ম নেওয়া শিশুদের ওজন কম হয়

যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

আর্সেনিক দূষণের সঙ্গে কম ওজন নিয়ে শিশু জন্মানোর সম্পর্ক আছে। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা দেখেছেন, যে এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ বেশি, সেসব এলাকায় জন্ম নেওয়া শিশুদের ওজন তুলনামূলকভাবে কম।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় শিকাগোর গবেষকেরা এই গবেষণা করেছেন। গবেষণা নিবন্ধটি এ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এনভায়রনমেন্ট ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি বিজ্ঞান সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে। তাতে গবেষকেরা বলেছেন, ব্যক্তিমালিকানাধীন নলকূপগুলোর পানিতে থাকা আর্সেনিকের পরিমাণ কমানো সম্ভব হলে তা বেশিসংখ্যক শিশুর পর্যাপ্ত ওজন নিয়ে জন্মগ্রহণ করায় সাহায্য করবে। বলা হচ্ছে, আর্সেনিক নিয়ে এটি যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম রোগতাত্ত্বিক গবেষণা।

বাংলাদেশের প্রায় সব জেলায় আর্সেনিকের দূষণ আছে। অন্যদিকে দেশে কম ওজন নিয়ে শিশু জন্মানোর হারও অনেক বেশি। পরিসংখ্যান ব্যুরো ও জাতিসংঘ শিশু তহবিল ইউনিসেফের তথ্য বলছে, প্রতি ১০০টি শিশুর মধ্যে ২৩টি শিশু কম ওজন নিয়ে জন্মায়। আর্সেনিক দূষণ ও শিশুর বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশের সম্পর্ক নিয়ে গবেষণা বাংলাদেশে হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, দূষণের শিকার শিশুদের বিকাশ তুলনামূলকভাবে কম হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা আর্সেনিকের প্রভাব নির্ণয়ে যান্ত্রিক মডেল ব্যবহার করেন। এ ক্ষেত্রে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের গ্রাম এলাকার ব্যক্তিমালিকানাধীন উৎসের পানিতে থাকা আর্সেনিকের মাত্রা এবং সংশ্লিষ্ট এলাকায় জন্ম নেওয়া শিশুদের জন্মকালীন ওজন পর্যালোচনা করেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, এক লিটার পানিতে ৫ মাইক্রোগ্রামের কম আর্সেনিক থাকলে তা সহনীয়। অর্থাৎ তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়। কিন্তু ৫ গ্রামের বেশি হলে তা দূষিত হিসেবে বিবেচিত হয়।

গবেষকেরা দেখেছেন, যেখানে এক লিটার পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ ৫ মাইক্রোগ্রামের বেশি, সেখানে শিশুদের জন্মকালীন ওজন শিশুদের জন্মকালীন গড় ওজনের চেয়ে ১ দশমিক ৮ গ্রাম কম। আবার যেখানে এক লিটার পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ ১০ মাইক্রোগ্রামের বেশি, সেখানে শিশুদের জন্মকালীন ওজন জন্মকালীন গড় ওজনের চেয়ে ২ দশমিক ৮ গ্রাম কম। গবেষকেরা বলছেন, গবেষণার একটি দুর্বলতা হচ্ছে পরিমাণ মাত্রা ব্যক্তিপর্যায়ে মূল্যায়ন করা হয়নি।

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

All rights reserved © Jubokantho24.com