শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে ভীত বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে প্রভাব বিস্তারে ৩ পরাশক্তি লড়ছে কুরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে সুইডিশ পণ্য বর্জনের আহ্বান হেফাজতের ‘বাবার পরিচয়হীন সন্তানের অভিভাবক মা হবে’ মর্মে রায় দেশের ধর্ম ও সংষ্কৃতির সাথে সাংঘর্ষিক আওয়ামী লীগ মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করে: নানক প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে ছাত্র জমিয়ত ঢাকা মহানগর উত্তরের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ৪ দিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি পরিকল্পনামন্ত্রী কাল পাঠ্যবইয়ের ভুল নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন দেশের আকাশে পবিত্র রজব মাসের চাঁদ দেখা গেছে আমরা চাই দেশে সত্যিকার ইসলামের জ্ঞান চর্চা হোক: প্রধানমন্ত্রী

সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠায় রাসুল (সা.)এর আদর্শের বিকল্প নেই: জাতীয় ওলামা সমাজ বাংলাদেশ

যুবকণ্ঠ ডেস্ক:

আজ (১৯ সেপ্টেম্বর) সোমবার রাজধানীর পল্টনস্থ থানা বাসমতী রেস্টুরেন্টে সংগঠনের সভাপতি মুফতী জুনায়েদ গুলজারের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মুফতী সানাউল্লাহ খানের সঞ্চালনায় জাতীয় ওলামা সমাজ বাংলাদেশের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে মুফতী জুনায়েদ গুলজার বলেন, হযরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন সর্বযুগের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ। পৃথিবীতে তিনি আগমণ করেছেন মানবজাতির মুক্তির দূত হিসেবে। তাঁর আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই নিহিত আছে সকল মানুষের মুক্তি ও কল্যাণ। তাঁর আদর্শ অনুসরণ করলে সর্বস্তরের মানুষই সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। তাই জাতীয় ওলামা সমাজ বাংলাদেশ- হুজুর (সা.) এর সিরাত আমাদের জীবনের সকল ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে।

তিনি আল্লামা মহিউদ্দিন খান (রাহ.) এর স্মৃতিচারণ করে বলেন, জাতীয় কনফারেন্স কে ধারাবাহিকভাবে প্রতিটি ধর্মপ্রাণ মুসলমানের নিকট পৌঁছে দেওয়ার জন্য জাতীয় ওলামা সমাজ বাংলাদেশ জাতীয় কনফারেন্স এর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

উক্ত মতবিনিময় সভায় মুফতী সানাউল্লাহ খান বলেন, বর্তমান অশান্ত পৃথিবীতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে মহাগ্রন্থ আল-কুরআন এবং রাসূল (সা.) এর সুন্নাহ’র কোন বিকল্প নেই। তাই রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক মুক্তি ও শান্তির পথ খুঁজে পেতে গোটা মানবজাতিকে কুরআন ও সুন্নাহর পথেই ফিরে আসতে হবে।

সভায় অন্যান্য বক্তারা জীবনের সকল ক্ষেত্রেই রাসুল (সা.)এর আদর্শ অনুসরণ করতে সকলের প্রতি আহবান জানান। এছাড়াও আগামী (৫ নভেম্বর) জাতীয় সীরাত কনফারেন্স’সহ বেশকিছু কর্মসূচি গ্রহন করা হয় এবং সভা শেষে পূর্বের কমিটি বিলুপ্ত করে সংগঠনের সভাপতি মুফতী জুনায়েদ গুলজারকে পুনরায় সভাপতি করে নতুম কমিটি ঘোষণা করা হয়।

কমিটিতে উপদেষ্টা মন্ডলি হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন, যথাক্রমে- আল্লামা আবুল কালাম, আল্লামা আহমেদ আলি কাসেমী, আল্লামা মহিউদ্দিন রব্বানী, আল্লামা সানাউল্লাহ মাহমুদি, মুফতি ওয়াহিদুল আলম, মাওলানা ফজলুর রহমান।

কমিটির অন্যান্য সদস্যরা নিম্নরূপ-
সভাপতিঃ মাওলানা জুনায়েদ গুলজার, সিনিয়র সহসভাপতি, মাওলানা ইসমাইল বেলায়েত হোসাইন, সহ সভাপতি যথাক্রমে- মাওলানা এনামুল হক মুসা, মাওলানা শামসুল আলম, মাওলানা হারুন ইসলামাবাদি, মুফতি ইমরানুল বারী সিরাজী, মাওলানা সরদার নেয়মাতুল্লাহ, মাওলানা ফরহাদ আলম।

সেক্রেটারি, মুফতি সানাউল্লাহ খান, সহকারী সেক্রেটারি যথাক্রমে- মুফতি আব্দুল্লাহ ফিরুজী, মাওলানা হাবিব মাদানি, এহতেশামুল হক সখী, মাওলানা জামিল সিদ্দিকী, বান্দা মুহাম্মদ ইমদাদুল্লাহ। সাংগঠনিক সম্পাদক, মাহমুদুল হাসান শাহেদি, সহ সাংগঠনিক, মাওলানা সাদ বিন জাকির, প্রচার সম্পাদক, মাওলানা আলামিন আরাফাত মুফতি জাকারিয়া, মাওলানা আবির হোসাইন, মাওলানা নাসির হোসাইন। সদস্য যথাক্রমে- মাওলানা আব্দুল গাফফার, মাওলানা শরিফ হায়সা, মাওলানা মুসাইব হাসান জিয়াদ প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

All rights reserved © Jubokantho24.com